এডিপি বাস্তবায়নে আইসিটি ডিভিশনের রেকর্ড সাফল্য


পটুয়াখালী বার্তা, পটুয়াখালী

তারিখ: ২০১৬-০৭-০১ | সময়: ০৬:৫৮:১৮

বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচি (এডিপি) বাস্তবায়নে রেকর্ড সাফল্য দেখিয়েছে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগ। ২০১৫-১৬ অর্থবছরে প্রায় ১২১ শতাংশ এডিপি বাস্তবায়ন করে সরকারের মন্ত্রণালয় ও বিভাগের মধ্যে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগ শীর্ষ অবস্থানে রয়েছে।  

মঙ্গলবার আইসিটি ডিভিশনের সম্মেলন কক্ষে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলকের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এডিপি পর্যালোচনা সভায় এসব তথ্য জানানো হয়।

সভায় বলা হয়, ২০১৫-১৬ অর্থবছরে এ বিভাগের এডিপি বাস্তবায়নের হার দাঁড়িয়েছে ১২০ দশমিক ৫৫ শতাংশ। যা তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের পূর্ববর্তী অর্থবছরের চেয়ে ১৯ শতাংশ বেশি। ২০১৪-১৫ অর্থবছরে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের এডিপি বাস্তবায়নের হার ছিল ১০২ শতাংশ।

আইসিটি ডিভিশনের একজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা জানান, ২০১৫-১৬ অর্থবছরে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের ৯টি প্রকল্পে সংশোধিত বরাদ্দের পরিমাণ ছিল ৯৫৪ কোটি টাকা। এ সময়ে অর্থ ব্যয় হয়েছে ১১শ’ ৫০ কোটি ১২ লাখ টাকা বা ১২০ দশমিক ৫৫ শতাংশ।  

তিনি জানান, তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের অধীনস্থ চারটি সংস্থার মধ্যে বিদায়ী অর্থবছরে (২০১৫-১৬) বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিল (বিসিসি) সংশোধিত বাজেটে নির্ধারিত বরাদ্দের অতিরিক্ত ব্যয় করে শীর্ষ অবস্থানে রয়েছে। বিসিসির ৪টি প্রকল্পে সংশোধিত বাজেটে বরাদ্দ ছিল ৪৪৮ কোটি ২১ লাখ টাকা। ব্যয় হয়েছে ৬৭৯ কোটি ৮৫ লাখ টাকা। সংস্থাটির এডিপি বাস্তবায়নের এই হার ১৫১ শতাংশ। অন্য সংস্থার মধ্যে বাংলাদেশ হাইটেক কর্তৃপক্ষের এডিপি বাস্তবায়নের হার ৮৭ দশমিক ১৫ শতাংশ, তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি অধিদফতরের ৯৯ দশমিক ১৭ শতাংশ, তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের ৯৮ দশমিক ৬১ শতাংশ।

বিসিসির সাফল্যে খুশী হয়ে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী সংস্থাটির নির্বাহী পরিচালক এস এম আশরাফুল ইসলামকে একটি ক্রেস্ট উপহার দেন।

তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের এই অর্জনকে রেকর্ড সাফল্য হিসেবে দেখছেন তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক।

তিনি বলেন, এডিপি বাস্তবায়নে এই সাফল্যের নেপথ্যে কাজ করেছে প্রধানমন্ত্রীর তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিষয়ক উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয়ের পরামর্শ ও নির্দেশনা। ২০১৪ সালের ১২ জানুয়ারি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে নতুন সরকার দায়িত্ব গ্রহণের পর সজীব ওয়াজেদ জয় পাঁচ বার তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগে আসেন এবং এই বিভাগের প্রতিটি প্রকল্প ও কর্মসূচি পর্যালোচনা করে তা বাস্তবায়নের ব্যাপারে প্রয়োজনীয় নির্দেশনা দিয়েছেন এবং তদারকি করেছেন।

শুধু তাই নয় তিনি (জয়) আমাদের পরামর্শ দিয়েছেন জনগণের উপকার হয় শুধুমাত্র এমন প্রকল্প ও কর্মসূচি গ্রহণ করতে হবে এবং বৈদেশিক সহায়তার প্রকল্পের ক্ষেত্রে দেশীয় স্বার্থকে বিবেচনায় নিয়ে নেগোশিয়েশন করতে হবে। তার নির্দেশ বাস্তবায়ন ও পরামর্শ গ্রহণে আইসিটি ডিভিশনের প্রত্যেক কর্মকর্তা ও কর্মচারী নিবেদিত প্রাণ হয়ে কাজ করেছে। ফলে এডিপি বাস্তবায়নে এই সাফল্য।

তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের সচিব শ্যাম সুন্দর সিকদার জানান, প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলকের গতিশীল নেতৃত্বের কারণে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগ অত্যন্ত গতিশীল। তিনি এডিপি বাস্তবায়ন নিয়ে প্রতিমাসে একবার এবং কোনো কোনো মাসে দু’বারও সভা করেছেন। বাস্তবায়নের দুর্বলতাগুলো চিহ্নিত করে তা সমাধানের পথ দেখিয়ে দিয়েছেন। এ বিভাগের অধিকাংশ কর্মকর্তা-কর্মচারী অফিসের নির্ধারিত সময়ের অতিরিক্ত কাজ করেন। যে কারণে ২০১৪-১৫ অর্থবছরে এডিপি বাস্তবায়নের হার ছিল ১০২ শতাংশ এবং সদ্য বিদায়ী অর্থবছরে (২০১৫-১৬) এই হার ১২০ দশমিক ৫৫ শতাংশ।





Comment Disabled

Comments